1. admin@thedailyajkal.com : TARIP : MAHMUDUL HASAN TARIP
  2. newsdailyajkal@gmail.com : MAHMUDUL HASAN TARIP : MAHMUDUL HASAN TARIP
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
চলমান তাপদাহে অগ্নি দুর্ঘটনা এড়াতে ব্যাবসায়ীদের সাথে ইউএনও’র সচেতনতামূলক সভা রাণীশংকৈলে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২ বালু ব্যবসায়ীকে ১৫ দিনের কারাদন্ড শ্রমিক লীগ নেতার গলায় ফাঁস নেওয়া অবস্থায় ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার রাণীশংকৈলে দুই ইটভাটা মালিককে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা রাণীশংকৈলে উপজেলা নির্বাচনে ৩ পদে ১৩ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল ট্রাইকো কম্পোস্ট সারে সাফল্য কোকোডাস্ট পদ্ধতিতে চারা উৎপাদনে সাফল্য মালচিং পেপার পদ্ধতিতে সবজি চাষ করে কৃষক অধিক লাভবান রাজবাড়ীতে দাঁড়িয়ে থাকা পাট বোঝাই ট্রাকে, গ্যাস বহনকারী ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ১ আমাদের হোসেনপুর ফেইসবুক গ্রুপের ঈদ পূর্ণমিলনী

বরখাস্তের সিদ্ধান্ত হওয়া শিক্ষক পেলেন প্রতিষ্ঠান প্রধানের দায়িত্ব

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ১৫০ বার পঠিত

জবি প্রতিনিধি :
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধীন পরিচালিত পোগোজ ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে, বরখাস্তের সিদ্ধান্ত হওয়া এক শিক্ষককে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। ওই শিক্ষকের নাম শরিফুল আলম। তবে পেশাগত অসদাচরণ, দুর্নীতি ও নৈতিক স্খলনের অভিযোগ থাকা ওই শিক্ষকের সঙ্গে কাজ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন অন্য শিক্ষকরা। তারা ইতোমধ্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে বিষয়টি অবগত করেছেন।

প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবদুস সাত্তার বলেন, শরিফুল আলমের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, সনদ জাল করা, অন্য শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রদের উসকে দেওয়া, মানসিক নির্যাতন, নৈতিক স্খলন, নারী সহকর্মীদের অনৈতিক প্রস্তাবসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগে গত বছরের ২৫শে মে তাকে সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তখন তিনি সহকারী প্রধান শিক্ষক পদে ছিলেন। গত বছরের ২৩শে নভেম্বর গভর্নিং বোর্ডের সভায় সর্বসম্মতভাবে তাকে চাকরি হতে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিদ্ধান্তটি অনুমোদনের জন্য ৩০শে নভেম্বর মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের আপিল অ্যান্ড আরবিট্রেশন কমিটির কাছে আবেদন করা হয়।

সম্প্রতি ওই শিক্ষককে প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য নির্দেশ দিয়েছে মাউশি। নির্দেশনা পাওয়ার পর সেই শিক্ষক যখন দায়িত্ব নিতে আসেন, তখন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ প্রতিষ্ঠানটির কিছু শিক্ষক এর বিরোধিতা করেন।

ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বলেন, তারা ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের কাছে আবেদন করেছেন। তিনি বিষয়টি পুনঃতদন্তের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। আবদুস সাত্তার বলেন, ওই শিক্ষক স্কুলের এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের হাজিরা খাতা নিয়ে গেছেন এবং বিভিন্ন সময় আমাদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন।

এদিকে শরিফুল আলমের দাবি, তাকে হয়রানি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, যেহেতু মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর আমাকে প্রতিষ্ঠানপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের নির্দেশনা দিয়েছে, তাই এখন আমার সঙ্গে কে দায়িত্ব পালন করবেন, কে করবেন না, এটা তাদের (শিক্ষকদের) ব্যক্তিগত বিষয়। আমি আমার দায়িত্ব পালন করে চাকরিজীবন শেষ করতে চাই।

এ বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে যেসব অভিযোগ উঠেছে, মনে হয় সেসব আমলে নেয়নি অধিদপ্তর। প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকরা অভিযোগগুলো নিয়ে এসেছিলেন। বিশেষ করে সেই শিক্ষকের সঙ্গে কাজ করতে নারী শিক্ষকরা অনেক বেশি অনিরাপদ বোধ করছেন। যদি সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো সত্য হয়ে থাকে, তবে প্রতিষ্ঠানের স্থিতিশীলতার জন্য তাকে দায়িত্ব দেওয়া ভালো হবে না।
-এএন/জেএনইউ

Facebook Comments Box
এই জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ দৈনিক আজকাল

Theme Customized By Shakil IT Park